বৃহস্পতিবার, ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৫:৩২ অপরাহ্ন

শিরোনাম :
ছাদে অসাধারন আঙ্গুর গাছের বাগান === যে কারনে গরুর খামার করে সফল হতে পারছেন না নতুন খামারিরা ** চন্দন গাছের টুকিটাকি- বীজ থেকে চারা উত্তোলন আর যত্নাদি ** “মাঠ পর্যায় ইউ‌পি নির্বাচনী ধারাবা‌হিক অনুসন্ধানী প্রতি‌বেদন” (পর্ব-০১) জার্মান আওয়ামী লীগ তিব্র নিন্দা এবং প্রতিবাদ চাকরির আট বছরেই ১৩ কোটি টাকার মালিক বিআরটিএ কর্মকর্তা ২২ বছর বয়সের মধ্যে বিয়ে না হলে মে’য়েদের ৭ টি সমস্যার মুখোমুখি হতে হয় মেয়েদের পাঁচটি অঙ্গ বড় হলে স্বামীরা সৌভাগ্যবান হয়ে থাকে কি করলে মেয়েরা কখনো ছেলেদের ভুলতে পারবে না! গোসলের সময় বা ও’য়াশরুমে গিয়ে মেয়েরা কী চিন্তা করে? প্রেমের ফাঁদে ফেলে অপরাধীকে ধরলেন পুলিশের এসআই! ভাই-ভাবি ও তাদের দুই সন্তানকে খু’নের রায়ে ছোট ভাইকে মৃ’ত্যু’দণ্ড আওয়ামী লীগের সম্ভবনাময় গোছানো মাঠ নস্টের অভিযোগ তানোরের বাঁধাইড় ইউপিতে আলোচনা সভা শিক্ষার্থীদের ডিজিটাল সিটিজেন হিসেবে গড়ে তুলতে শিক্ষকদেরই অগ্রণী ভূমিকা রাখতে হবে 

রাজীবপুরে আতঙ্ক হিরো বাহিনী

রৌমারী(কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধি:
মাদক কারবার থেকে শুরু করে নারী নির্যাতন এমন কি জমি দখল সহ ওই বাহিনীর বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ রয়েছে।
কুড়িগ্রামের রাজীবপুর উপজেলার চেয়ারম্যান ও সাবেক উপজেলা আ,লীগের সাধারন সম্পাদক আকবার হোসেন হিরো এলাকাবাসীর কাছে এক মূর্তিমান আতঙ্ক। মাদক কারবার, হত্যার হুমকি, নারী নির্যাতন, জমি দখলসহ তাঁর বিরুদ্ধে অভিযোগের শেষ নেই। স্বল্প সময়ে একজন আ,লীগের সাধারণ কর্মী থেকে টাকার পাহাড় গড়ে তুলেছেন। সম্প্রতি হিরোর নেতৃত্বে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ডাক্তার দেলোয়ার হোসেন কে ফোন করে উপজেলা চত্বরে নিয়ে আসেন এবং চেয়ারম্যান এবং হত্যার হুমকি দেন প্রকাশ্যে। বাধ্য হয়ে ওই ডাক্তার ৪ জনের নাম উল্লেখ করে থানায় সাধারন ডায়রি করেন। শুধু তাই নয় মাস ছয়েক আগে হিরো বাহিনীর অন্যতম সন্ত্রাস বিদ্যুৎ সরকার প্রকাশ্যে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে হামলায় চালায়। এই বাহীনির অন্যতম আরেক দাজ্জাল রেনু চুরি করে ৫ টি গাছ কাটে সরকারী কিন্তু রহস্যজনক কারনে মামলা নেয়নি থানার পুলিশ। রাজনীতির ছত্রছায়ায় একের পর এক অপরাধ করে গেল ও দেখার যেন কেউ নেই। হিরো বাহিনীর নেতৃত্বে রয়েছে উপজেলা আ,লীগের সভাপতি আব্দুল হাই সরকার, আজিমউদ্দিন মাষ্টার, এবং আকবার হোসেন হিরো চেয়ারম্যান।
স্থানীয়রা জানায়, গত পাঁচ  বছর হিরো চেয়ারম্যানের তেমন আয়-রোজগারের কোনো পথ ছিল না। ভাতিজা মাসুদ উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক হওয়ার পর ক্ষমতার অপব্যবহার শুরু করেন। খোঁজ নিয়ে জানা যায়, ২০০৯ সালের উপজেলা নির্বাচনে সামান্য ভোটের ব্যবধানে বিজয়ী হোন আকবার হোসেন হিরো। টানা বছর জনগনের সাথে সুসম্পর্ক না রেখে জড়িয়ে পড়েন অনিয়ম-দুর্নীতিতে। জনগন ২০১৪ সালের নির্বাচনে বিপুল ভোটে হারিয়ে দেয়। চেয়ারম্যান থাকা কালে এমন কোন অপরাধ নাই যা তিনি করেননি। আজাদ মেম্বার নামের এক ইউপি সদস্য মোবাইলে এই প্রতিবেদক কে বলেন, তিনজনের বিরুদ্ধে এলাকায় বহু অভিযোগ রয়েছে। সরকারের উচিত ওই তিনজন কে দল থেকে ঘাড় ধাক্কা দিয়ে বের করে দেওয়া। আব্দুর রশিদ হিরো বাহিনীর একজন। তিনি হিরোর কথা মতো উপজেলার সামনে আ,লীগের এক নেতা কে ব্যাপক মারপিট করেছিলেন। এই বাহীনির অভিযোগের অন্ত নেই। সব অভিযোগ অস্বীকার করে এই প্রতিবেদক কে আকবার হোসেন হিরো বলেন, রাজনীতি করলে দোষ/সুনাম থাকবে। তাই বলে কি আপনে আমাদের বিরুদ্ধে লেখে যাবেন। আপনার অভিযোগ সব সঠিক না কিছু সত্য কিছু মিথ্যা।

Please Share This Post in Your Social Media

https://twitter.com/WDeshersangbad

https://www.facebook.com/Dsangbad

https://www.facebook.com/Dsangbad

All rights reserved © deshersangbad.com 2011-2021
Design And Developed By Freelancer Zone