শনিবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৮:২৭ অপরাহ্ন

শিরোনাম :
করোনায় আরও ৩৫ মৃত্যু, শনাক্ত ১,১৯০ রাজারবাগ পীরের নামে ৬ হাজার একর পাহাড়, উৎস খোঁজার দাবি নদীভাঙনে ক্ষতিগ্রস্ত ৫১ হাজার পরিবার পাবে সহায়তা জনগণকে সতর্ক করে তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হাছান মাহমুদ বলেছেন, নির্বাচন এলেই শীতের অতিথি পাখিরা আসে, তারা ভোট চায়, কিন্তু তারা এলাকায় থাকেও না, উন্নয়ন করে না। তাই অতিথি পাখিরা ভোট চাইতে এলে তাদের ফিরিয়ে দেবেন। শনিবার (১৮ সেপ্টেম্বর) ভোলার চরফ্যাশনে সাবেক সংসদ সদস্য অধ্যক্ষ নজরুল ইসলামের ২৯তম মৃত্যুবার্ষিকীর আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন। সম্পর্কিত খবর আমাদের ১৬ কোটি মানুষ তালেবানদের কয়েক বছর খাওয়াতে পারেন: ডা. জাফরুল্লাহ ইউপি নির্বাচনের প্রচারণা শেষ হচ্ছে, ভোট সোমবার বিনা ভোটেই জয়ের পথে ডা. প্রাণ গোপাল হাছান মাহমুদ বলেন, আজকে বাংলাদেশ বদলে গেছে। প্রতিটি মানুষের চেহারা বদলে গেছে। এখন আর ‘বাসি ভাত দেন’ এ কথা শোনা যায়না, ছেড়া কাপড় বা খালি পাে মানুষ দেখা যায় না। কুড়ে ঘর খুঁজে পাওয়া যায় না। এটাই হলো বদলে যাওয়া বাংলাদেশ। এটি সম্ভব হয়েছে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বের কারণে। বিএনপির মধ্যরাতের সিরিজ মিটিংয়ের কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, তারা বলে আওয়ামী লীগ সরকারের অধীনে তারা নির্বাচনে যাবে না, কিন্তু কোনো সরকারের অধীনে কখনই নির্বাচন হয় না, নির্বাচন হয় নির্বাচন কমিশনের অধীনে। রাত ১২টার যারা টেলিভিশনে বড় বড় কথা বলে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের স্বপ্ন দেখে সেটি কোনোদিন বাস্তবায়ন হবে না। তথ্যমন্ত্রী আরো বলেন, সংবিধান অনুয়ায়ী নির্বাচনকালীন সময়ে নির্বাচন কমিশনের অধীনেই নির্বাচন হবে। সুতারাং মিথ্যা স্বপ্ন দেখে লাভ নেই। শেখ হাসিনা সরকার, এদেশে বার বার দরকার। ট্রেনে সন্তান প্রসবে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিয়ে সবার  প্রশংসায় ডা.ফারজানা সিনোফার্মের আরো ৫৪ লাখ টিকা ঢাকায় তানোরে আমণখেতে পোকার আক্রমণ  দিশেহারা কৃষক যুবকদের প্রতি সরকারের বিমাতা সুলভ আচরণে বেকারত্ব বাড়ছে : হানিফ বাংলাদেশী প্রধানমন্ত্রীর উপহার ভূমিহীনদের আশ্রয়ন প্রকল্পের ঘর নির্মাণে দুর্নীতি ও অনিয়মের বিচারের দাবীতে মানববন্ধন ইউপি নির্বাচনের প্রচারণা শেষ হচ্ছে, ভোট সোমবার কুমিল্লায় বাসের ধাক্কায় অটোরিকশার ৪ যাত্রী নিহত বিনা ভোটেই জয়ের পথে ডা. প্রাণ গোপাল স্কুল-কলেজে সাপ্তাহিক ছুটি দুই দিন হচ্ছে সাউন্ডবাংলা-পল্টনড্ডা সাহিত্যসংগঠকদের সূতিকাগার বাংলাদেশ জাতীয় হিন্দু যুব মহাজোট এর নব নির্বাচিত কমিটির অভিষেক

মুসলমানদের বৈজ্ঞানিক অর্জন ও ১০০১ প্রকল্প

আব্দুল্লাহ -আল -মুজাহিদ:
২০০১ সালের ২৬ সেপ্টেম্বর  বিশ্বব্যাপী সকল বড় বড় কর্পোরেশনের ম্যানেজারদের এক সম্মেলনে  প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান হিউলেট- প্যাকারড (বর্তমানে এইচ পি) তৎকালীন প্রধান এক্সিকিউটিভ, মিস কারলিটন ফিওরিনা বলেন,” প্রযুক্তি শিল্প আরবীয় গণিতবিদদের অবদান ছাড়া আজকের মতো বিকাশ হতো না । ‘বিবিসিটু’তে এডাম হার্ট ডেভিসের টিভি সিরিজ ” হোয়াট দি এইনশ্যান্ট ডিড ফর আস” শিরোনামের একটা সম্পূর্ণ পর্ব ছিল” হোয়াট দ্যা ইসলামিক ওয়াল্ড ডিড ফর আস”; সেখানে খুবই আবেগীয়ভাবে বিশ্বে মুসলমানদের অবদানকে স্মরণ করা হয়েছিল।  ম্যাঞ্চচেষ্টার ইউনিভার্সিটি অব সাইন্স এ্যান্ড টেকনোলজিতে ১৯৭৫ সালে লর্ড বিভি বাউডেনের উদ্যগে মুসলিমদের অবদানের উপর গবেষণা শুরুর কথা ছিল; কিন্তু পরবর্তীতে ১৯৯৩ সালে  এই বিশ্ববিদ্যালয় আবারো প্রফেসর ডোনাল্ট কার্ডওয়েল এর উৎসাহে সেলিম টি এস আল হাসানির সম্পাদনায় প্রযুক্তি বিষয়ক বিখ্যাত এক প্রকল্প “ওয়ান থাউজ্যান্ড ওয়ান ইনভেনশনজঃ ডিসকভার দ্যা মুসলিম হ্যারিটেজ ইন আওয়ার ওয়াল্ড” নামক গবেষণামূলক সচিত্র শিক্ষামুলক বইয়ের কাজ শুরু হয় এবং তা যথা সময়ে প্রকাশ হয়। এই প্রকল্পে মুসলামানদের দ্বারা সত্তম থেকে সতেরো দশ শতাব্দীতে ঘটা বিজ্ঞানীদের ১০০১ আবিষ্কারসমূহকে সাত অধ্যায়ে বিভক্ত করে বিশ্বের দরবারে তুলে আনা হয়েছে। ধর্মীয় গোঁড়ামি থেকে মুক্ত হয়ে বৈজ্ঞানিক প্রযুক্তির ইতিবাচক ও গঠনমূলক ব্যবহার কিভাবে সভ্যতাকে পাল্টে দিতে পারে তার এক বড় উদাহরণ এ-ই প্রকাশনা।  বইটি প্রকাশ পাওয়ার পর; সারা বিশ্বব্যাপী ব্যাপক চাহিদা সৃষ্টি হয়। এখন অন্যান্য ভাষায় অনুবাদের চেষ্টা হচ্ছে। সবচেয়ে মোদ্দাকথা হল, মুসলিমরা তখন নিত্য নতুন এ-ই রকম আবিস্কার কর্মের মাধ্যমে ধর্মের প্রকাশ ঘটাতে পেরেছিলেন।
কফি থেকে শুরু করে শল্যছুরি ও মানমন্দির, নগর ব্যবস্থাপনা, বায়ুকল, বাঁধ, পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতার ধারণা, কাঁচ শিল্প ও হাসপাতাল স্থাপন, রসায়ন শিল্প ইত্যাদির ধারণা ও আবিষ্কার মুসলমানদে দক্ষ নেতৃত্ব ও কোরআনের উদ্দীপনায় সম্ভব হয়।
ইবনে আল হাইথামের আলোকশাস্ত্রের অবদান অনন্য। ‘আমরা কিভাবে দেখি’ তিনি তার সূত্র আবিষ্কার করেন।তাই,তিনি দৃষ্টি ও ক্যামেরা আবিষ্কারের গুরু। আব্বাস ইবনে ফিরনাসের উড়বার চেষ্টার কথা- বেকনের বইয়ের মধ্য উল্লেখ আছে যা রাইট ব্রাদার্সের(১৯০৩) বহু পুর্বের ঘটনা।  তিনি কর্ডোভায় পড়ালেখা করেছেন আর আব্বাস ছিল সেখানকার অধিবাসী।
দক্ষিণ-পশ্চিম তুরস্কের ১৩শ শতাব্দীর একজন ইঞ্জিনিয়ার আল জাহরি প্রথম স্বয়ংক্রিয় মেশিনের ধারণা দেন।  তিনি যান্ত্রিক বিষয়ের উপর চমৎকার বই লিখেন’ দ্যা বুক অফ নলেজ অফ ইঞ্জিনিয়াস’স মেকানিকাল ডিভাইস’।  খারেজমির উত্তরসুরি মুসলিম গণিতবিদদের হাতে তার আবিষ্কৃত অ্যালজেবরা জ্যামিতিক কাঠামো থেকে মুক্ত হয়ে পাঠিগণিত ভিত্তিক আধুনিক অ্যালজেবরার ভিত্তি স্থাপিত হয় । তারা  ০ এবং ১ এ-র তাৎপর্য নিয়ে গবেষণা করে আল্লাহর গুণবাচক ৯৯ নাম নিয়ে ভাবনা-চিন্তা শুরু করেন। এই  ০ ও ১ এখন কম্পিউটারের ভাষা। দক্ষিণ স্পেনে ১০০০ বছর আগে আবুল কাসেম খালিলি ইবনে আল আব্বাস আল জাওয়াহারি রক্তনালি, সাধারণ ও অস্থির অপারেশন সম্পর্ণ করতে পেরেছিলেন। তিনি প্রায় ২০০ শল্যচিকিৎসার যন্ত্রও তৈরি করেন। মুসলমানদের দ্বারা আবিষ্কৃত ‘আস্ট্রোলব’ যন্ত্রটি নিখুঁত ছিল।  আধুনিক জ্যোতিঃপদার্থবিদ  ড. উইলিয়াম একদম একে নির্ভুল বলেছেন।  আল মাওজিলি এক হাজার বছর পূর্বে , ছানি অপারেশন করার যে ফাঁকা সূচ পদ্ধতি আবিষ্কার করেছিলেন; তা এ-ই একাবিংশ শতাব্দীতে এসেও খুব একটা পরিবর্তন হয় নি।
কোরআনের প্রথম বাণী ‘পড়’ এবং তারপরে অনেক জায়গায় ‘তাদাব্বুর ও তাফাক্কুর” এ-র কথা গুরুত্বের সাথে বলা আছে এবং তার আলোকে জ্ঞানের যে অনুসন্ধান ও কৌতূহল সৃষ্টি হয়; তাই, এই আবিষ্কারের শক্তি।  আল্লামা ইউসুফ আল কারজাবি বলেন এ-ই শব্দগুলো কোরআনে যে অর্থে ব্যবহার হয়েছে তাকে সম্পূর্ণভাবে অনুবাদ করা যায় না বলে মতামত দিয়েছেন; গভীর ধ্যান ( contemplatation) দ্বারা প্রকাশ হয় মাত্র ;  আসলে , এর  অর্থ আরো গভীরে। প্রত্যেক মুসলিমদের আজ মানবের কল্যাণের জন্য আবিষ্কারের  চেতনায় আলোড়িত হতে হবে কোরআনের উদ্দীপনা থেকে উৎসাহ নিয়ে, তখন আমাদের শান্তির ধর্ম আরো সার্থক হয়ে উঠবে।
লেখক
প্রভাষক, প্রাবন্ধিক ও অনুবাদক
কাদিরাবাদ ক্যান্টনমেন্ট কলেজ
ইমেইল: mujahidqcsc2010@gmail.com

Please Share This Post in Your Social Media

https://twitter.com/WDeshersangbad

https://www.facebook.com/Dsangbad

https://www.facebook.com/Dsangbad

জনগণকে সতর্ক করে তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হাছান মাহমুদ বলেছেন, নির্বাচন এলেই শীতের অতিথি পাখিরা আসে, তারা ভোট চায়, কিন্তু তারা এলাকায় থাকেও না, উন্নয়ন করে না। তাই অতিথি পাখিরা ভোট চাইতে এলে তাদের ফিরিয়ে দেবেন। শনিবার (১৮ সেপ্টেম্বর) ভোলার চরফ্যাশনে সাবেক সংসদ সদস্য অধ্যক্ষ নজরুল ইসলামের ২৯তম মৃত্যুবার্ষিকীর আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন। সম্পর্কিত খবর আমাদের ১৬ কোটি মানুষ তালেবানদের কয়েক বছর খাওয়াতে পারেন: ডা. জাফরুল্লাহ ইউপি নির্বাচনের প্রচারণা শেষ হচ্ছে, ভোট সোমবার বিনা ভোটেই জয়ের পথে ডা. প্রাণ গোপাল হাছান মাহমুদ বলেন, আজকে বাংলাদেশ বদলে গেছে। প্রতিটি মানুষের চেহারা বদলে গেছে। এখন আর ‘বাসি ভাত দেন’ এ কথা শোনা যায়না, ছেড়া কাপড় বা খালি পাে মানুষ দেখা যায় না। কুড়ে ঘর খুঁজে পাওয়া যায় না। এটাই হলো বদলে যাওয়া বাংলাদেশ। এটি সম্ভব হয়েছে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বের কারণে। বিএনপির মধ্যরাতের সিরিজ মিটিংয়ের কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, তারা বলে আওয়ামী লীগ সরকারের অধীনে তারা নির্বাচনে যাবে না, কিন্তু কোনো সরকারের অধীনে কখনই নির্বাচন হয় না, নির্বাচন হয় নির্বাচন কমিশনের অধীনে। রাত ১২টার যারা টেলিভিশনে বড় বড় কথা বলে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের স্বপ্ন দেখে সেটি কোনোদিন বাস্তবায়ন হবে না। তথ্যমন্ত্রী আরো বলেন, সংবিধান অনুয়ায়ী নির্বাচনকালীন সময়ে নির্বাচন কমিশনের অধীনেই নির্বাচন হবে। সুতারাং মিথ্যা স্বপ্ন দেখে লাভ নেই। শেখ হাসিনা সরকার, এদেশে বার বার দরকার।

All rights reserved © deshersangbad.com 2011-2021
Design And Developed By Freelancer Zone