শনিবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৮:৫৮ অপরাহ্ন

শিরোনাম :
করোনায় আরও ৩৫ মৃত্যু, শনাক্ত ১,১৯০ রাজারবাগ পীরের নামে ৬ হাজার একর পাহাড়, উৎস খোঁজার দাবি নদীভাঙনে ক্ষতিগ্রস্ত ৫১ হাজার পরিবার পাবে সহায়তা জনগণকে সতর্ক করে তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হাছান মাহমুদ বলেছেন, নির্বাচন এলেই শীতের অতিথি পাখিরা আসে, তারা ভোট চায়, কিন্তু তারা এলাকায় থাকেও না, উন্নয়ন করে না। তাই অতিথি পাখিরা ভোট চাইতে এলে তাদের ফিরিয়ে দেবেন। শনিবার (১৮ সেপ্টেম্বর) ভোলার চরফ্যাশনে সাবেক সংসদ সদস্য অধ্যক্ষ নজরুল ইসলামের ২৯তম মৃত্যুবার্ষিকীর আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন। সম্পর্কিত খবর আমাদের ১৬ কোটি মানুষ তালেবানদের কয়েক বছর খাওয়াতে পারেন: ডা. জাফরুল্লাহ ইউপি নির্বাচনের প্রচারণা শেষ হচ্ছে, ভোট সোমবার বিনা ভোটেই জয়ের পথে ডা. প্রাণ গোপাল হাছান মাহমুদ বলেন, আজকে বাংলাদেশ বদলে গেছে। প্রতিটি মানুষের চেহারা বদলে গেছে। এখন আর ‘বাসি ভাত দেন’ এ কথা শোনা যায়না, ছেড়া কাপড় বা খালি পাে মানুষ দেখা যায় না। কুড়ে ঘর খুঁজে পাওয়া যায় না। এটাই হলো বদলে যাওয়া বাংলাদেশ। এটি সম্ভব হয়েছে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বের কারণে। বিএনপির মধ্যরাতের সিরিজ মিটিংয়ের কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, তারা বলে আওয়ামী লীগ সরকারের অধীনে তারা নির্বাচনে যাবে না, কিন্তু কোনো সরকারের অধীনে কখনই নির্বাচন হয় না, নির্বাচন হয় নির্বাচন কমিশনের অধীনে। রাত ১২টার যারা টেলিভিশনে বড় বড় কথা বলে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের স্বপ্ন দেখে সেটি কোনোদিন বাস্তবায়ন হবে না। তথ্যমন্ত্রী আরো বলেন, সংবিধান অনুয়ায়ী নির্বাচনকালীন সময়ে নির্বাচন কমিশনের অধীনেই নির্বাচন হবে। সুতারাং মিথ্যা স্বপ্ন দেখে লাভ নেই। শেখ হাসিনা সরকার, এদেশে বার বার দরকার। ট্রেনে সন্তান প্রসবে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিয়ে সবার  প্রশংসায় ডা.ফারজানা সিনোফার্মের আরো ৫৪ লাখ টিকা ঢাকায় তানোরে আমণখেতে পোকার আক্রমণ  দিশেহারা কৃষক যুবকদের প্রতি সরকারের বিমাতা সুলভ আচরণে বেকারত্ব বাড়ছে : হানিফ বাংলাদেশী প্রধানমন্ত্রীর উপহার ভূমিহীনদের আশ্রয়ন প্রকল্পের ঘর নির্মাণে দুর্নীতি ও অনিয়মের বিচারের দাবীতে মানববন্ধন ইউপি নির্বাচনের প্রচারণা শেষ হচ্ছে, ভোট সোমবার কুমিল্লায় বাসের ধাক্কায় অটোরিকশার ৪ যাত্রী নিহত বিনা ভোটেই জয়ের পথে ডা. প্রাণ গোপাল স্কুল-কলেজে সাপ্তাহিক ছুটি দুই দিন হচ্ছে সাউন্ডবাংলা-পল্টনড্ডা সাহিত্যসংগঠকদের সূতিকাগার বাংলাদেশ জাতীয় হিন্দু যুব মহাজোট এর নব নির্বাচিত কমিটির অভিষেক

পর্ন ভিডিও দেখায় সৌদি নারীদের আগ্রহ বেশি

ইন্টারনেটে পর্ন ভিডিও দেখায় সৌদি হিজাবী নারীরা আবারো তাদের শীর্ষস্থান ধরে রাখলো। এই নিয়ে পর পর পাঁচবার পর্ন ভিডিও স্ট্রিমিং শীর্ষস্থান ধরে আছে সৌদিআরব।
সারা বিশ্ব পর্ণগ্রাফির বিরাট বাজার আর সেই বাজারের সৌদিআরবের ‘কনজিউমারের’ সংখ্যা বিশাল। বিভিন্ন বয়সের দর্শক কিন্তু সৌদিতে কারা বেশী পর্ণ দেখে ছেলেরা না মেয়েরা? সাম্প্রতিক সমীক্ষা থেকে পর্ণগ্রাফি সম্পর্কে উঠে এসেছে অদ্ভুত সব তথ্য। আসুন দেখে নেওয়া যাক-
১) গত বছরের তুলনায় এই বছরে সৌদিতে ১২ শতাংশ বেশি হারে পর্ণ দেখছেন। গতবছর সৌদিতে পর্ণগ্রাফির মহিলা দর্শক ছিল ৪২ শতাংশ। এইবছর তা বেড়ে এই বছর ৫৪ শতাংশ হয়েছে।
২) ঈদ,শবে বরাত,শবে কদর দিবসের সময় সৌদিতে পর্ণগ্রাফির দর্শক সংখ্যা উল্লেখযোগ্য হারে বেড়ে যায়।
৩) সৌদিতে পর্ণ সাইটগুলোতে গিয়ে সবথেকে বেশি সার্চ করে ‘মোহাম্মদ’ শব্দটি দিয়ে। আর তারপরেই সব থেকে বেশি খোঁজে ‘পাকিস্থান’ আর ‘ইন্দোনেশিয়া’।
৪) সৌদিতে সব থেকে বেশী পর্ণ দেখা হয় উইক ডে-তে সকাল ৬টা থেকে ৭টা আর রাত ১০টা থেকে ১১টার মধ্যে।
৫) অবিশ্বাস্য হলেও সত্য যে, সৌদিতে সব থেকে বেশী পর্ণ দেখেন রোজার মাসে এবং ঈদে। ধারনা করা হয় রোজার মাসে সবচেয়ে বেশি অবসর সময় কাটায়। এইকারনে রোজার মাসে তারা বেশি পর্ণ দেখে।
৬) সৌদিতে মহিলাদের পর পর্ণ ভিডিও দেখায় শীর্ষে আছে হুজুর আলেমসমাজ। অনেকের ধারণা মোহাম্মদের যৌনজীবন বহুবিবাহ গল্প কোরানে পড়েই মূলত তারা পর্ণ ভিডিও দেখার প্রতি আগ্রহ দেখায়।
গবেষণায় বিশেষজ্ঞরা সৌদিতে শতাধিক বিবাহিত নারী-পুরুষের সাক্ষাৎকার গ্রহণ করেন। তারা দেখেন, বিয়ের আগে ও পরে কিভাবে যৌনতার প্রতি নারী-পুরুষের আগ্রহ বদলায়। দেখা গেছে, অংশগ্রহণকারী নারীদের ১৬ শতাংশ বিয়ের আগে পর্ন সিনমো দেখতেন কিন্তু বিয়ের পর তাদের ৩৫ শতাংশের পর্ন দেখার অভ্যাস গড়ে ওঠে। এর অন্যতম কারন বিয়ের পর তারা অনেক অবসর সময় কাটায়। বেশিরভাগ নারীদের মতামত তাদের নবীর বহুবিবাহ গল্প পড়েই তাদের পর্ণ দেখায় আগ্রহ সৃষ্টি করে।
সেক্স ভিডিও দেখা
আর পুরুষদের ১৮ শতাংশ বিয়ের আগে পর্ন দেখতেন। অথচ বিয়ের পর এ সংখ্যা ১১ শতাংশে নেমে আসে। সেক্সোলজিস জার্নালে প্রকাশিত এ প্রতিবেদনে বলা হয়, বিয়ের পর পর্ন সিনেমা দেখার প্রবণতা নারীদের মধ্যে বৃদ্ধি পায়। আর পুরুষদের মধ্যে কমে আসে। আবার পর্ন দেখার বিষয়টি যৌন আকাঙ্ক্ষার প্রকাশ ঘটায়।
অর্থাৎ, বিয়ের পর নারীরা যৌনজীবনে আগ্রহী হয়ে ওঠেন এবং সন্তানধারণের প্রস্তুতি নেন কিন্তু ছেলেরা সামাজিকভাবে প্রতিষ্ঠার দিকে নজর দেন। আরেক দৃষ্টিকোণ থেকে বলা যায়, বিয়ের পর নারীদের আর পর্ন দেখার ক্ষেত্রে মানসিক ও নৈতিক বাধা থাকে না। এ সময় অন্যদের কাছে ধরা পড়ার ভয় থাকে না।
কিন্তু বিয়ের আগে ছেলের এ ধরনের সমস্যা থাকে না। কিন্তু বিয়ের আগে মেয়েদের ক্ষেত্রে তা বেশ লজ্জাজনক হয়ে ওঠে। আবার এভাবে চিন্তা করা হয়েছে যে, পর্ন সিনেমা দেখার এ-প্রবণতা বিয়ের ওপর নির্ভর করে নয়, বরং বয়সের পরিবর্তনে দেখা দেয়।
বিয়ের পর নারী-পুরুষের যৌন চাহিদার বিষয়টিও বিশ্লেষণ করা হয়েছে। দেখা গেছে, ১৩ শতাংশ পুরুষ ও ১২ শতাংশ নারী স্বাভাবিক উপায়ের যৌনকর্মকেই বেছে নেন। এ ছাড়া ৫ দশমিক ৯ শতাংশ পুরুষ ও ৬ দশমিক ৯ শতাংশ নারী যৌনতৃপ্তি পেতে কল্পনার আশ্রয় নেন।
অনেকেই ভাবেন মহিলারা পর্নোগ্রাফি দেখেন না। ঠোঁটে ঠোঁট, একটু ঘনিষ্ঠ দৃশ্য– খুব বেশি হলে অ্যাডাল্ট সিনেমা। দৌড় ওই পর্যন্তই। এই ধারণা যদি আপনারও থাকে, তাহলে আপনি ভুলের রাজ্যে আছেন।
সাম্প্রতিক একটি সমীক্ষার রিপোর্ট যা বলছে, তা চমকানোর মতোই। বিশ্বের সবচেয়ে নামী পর্ন সাইটের মধ্যে অন্যতম একটি সাইটের সমীক্ষা রিপোর্টে দেখা গিয়েছে, রীতিমতো হার্ড কোর পর্ন সার্চ করেন সবচেয়ে বেশি সংখ্যক মহিলা। প্রথম অবস্থানে সৌদিআরব দ্বিতীয় অবস্থানে পাকিস্তান আর তৃতীয় অবস্থানে বাংলাদেশ।
মহিলাদের সার্চ টার্মে এক নম্বরে রয়েছে, ‘world’s biggest c**k’। ২০১৮ সালে মহিলাদের পর্ন সার্চে ৫৬৬ শতাংশই এই শব্দবন্ধগুলি। অন্যান্য সার্চ টার্মের মধ্যে রয়েছে ‘romantic sex’ মাত্র ২৪২ শতাংশ।
মহিলাদের পর্ন সার্চ টার্মের মধ্যে রয়েছে, পুরুষ নিম্নাঙ্গে সুখ দিচ্ছে বা সেক্সের আরামে চরম শীত্‍‌কার। শুধু তাই নয়, প্রেগেন্যান্সি পর্ন বা গর্ভবতী মহিলার মিলনের মতো সার্চ টার্মও রয়েছে তালিকায়। ৩৭ শতাংশ মহিলা সার্চ করেছেন গে সেক্স ভিডিও, যা তাত্‍‌পর্যপূর্ণ। তবে মুসলিম দেশগুলো পর্ণ দেখার শীর্ষদেশ হিসেবে থাকাটা আমাদের মুসলিম সমাজের জন্য লজ্জাজনক।

Please Share This Post in Your Social Media

https://twitter.com/WDeshersangbad

https://www.facebook.com/Dsangbad

https://www.facebook.com/Dsangbad

জনগণকে সতর্ক করে তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হাছান মাহমুদ বলেছেন, নির্বাচন এলেই শীতের অতিথি পাখিরা আসে, তারা ভোট চায়, কিন্তু তারা এলাকায় থাকেও না, উন্নয়ন করে না। তাই অতিথি পাখিরা ভোট চাইতে এলে তাদের ফিরিয়ে দেবেন। শনিবার (১৮ সেপ্টেম্বর) ভোলার চরফ্যাশনে সাবেক সংসদ সদস্য অধ্যক্ষ নজরুল ইসলামের ২৯তম মৃত্যুবার্ষিকীর আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন। সম্পর্কিত খবর আমাদের ১৬ কোটি মানুষ তালেবানদের কয়েক বছর খাওয়াতে পারেন: ডা. জাফরুল্লাহ ইউপি নির্বাচনের প্রচারণা শেষ হচ্ছে, ভোট সোমবার বিনা ভোটেই জয়ের পথে ডা. প্রাণ গোপাল হাছান মাহমুদ বলেন, আজকে বাংলাদেশ বদলে গেছে। প্রতিটি মানুষের চেহারা বদলে গেছে। এখন আর ‘বাসি ভাত দেন’ এ কথা শোনা যায়না, ছেড়া কাপড় বা খালি পাে মানুষ দেখা যায় না। কুড়ে ঘর খুঁজে পাওয়া যায় না। এটাই হলো বদলে যাওয়া বাংলাদেশ। এটি সম্ভব হয়েছে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বের কারণে। বিএনপির মধ্যরাতের সিরিজ মিটিংয়ের কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, তারা বলে আওয়ামী লীগ সরকারের অধীনে তারা নির্বাচনে যাবে না, কিন্তু কোনো সরকারের অধীনে কখনই নির্বাচন হয় না, নির্বাচন হয় নির্বাচন কমিশনের অধীনে। রাত ১২টার যারা টেলিভিশনে বড় বড় কথা বলে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের স্বপ্ন দেখে সেটি কোনোদিন বাস্তবায়ন হবে না। তথ্যমন্ত্রী আরো বলেন, সংবিধান অনুয়ায়ী নির্বাচনকালীন সময়ে নির্বাচন কমিশনের অধীনেই নির্বাচন হবে। সুতারাং মিথ্যা স্বপ্ন দেখে লাভ নেই। শেখ হাসিনা সরকার, এদেশে বার বার দরকার।

All rights reserved © deshersangbad.com 2011-2021
Design And Developed By Freelancer Zone