শুক্রবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৮:৪০ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম :
কক্সবাজারে বঙ্গোপসাগর উপকূলে মিয়ানমার থেকে ট্রলারে করে আনা সাড়ে ৪ লাখ ইয়াবা সহ আটক-৪ লন্ডনে ব্রিটিশ-বাংলাদেশি শিক্ষিকা খুন যে কারণে ডিভোর্স হচ্ছে ভারতের দক্ষিণী সিনেমার জনপ্রিয় তারকা দম্পতি নাগা-সামান্থার রাজধানী থেকে প্রায় এক কোটি টাকার মাদক উদ্ধার নতুনধারা রংপুর-রাজশাহীর সমন্বয়কারী হলেন নিপা অসহায় রাজিয়ার পাশে দাঁড়ালেন সুজন লালপুরের সংঘবদ্ধ হ্যাকার চক্রের ৮ সদস্য গ্রেপ্তার তানোরে বিনামুল্য কৃষি উপকরণ বিতরণ ই-অরেঞ্জ বিনিয়োগ করা টাকা ফেরতের দাবিতে গ্রাহকদের মিছিলে পুলিশের লাঠিচার্জ ক্রেতাদের স্বাচ্ছন্দ্য বৃদ্ধিতে বনশ্রীতে স্যামসাং অথোরাইজড সার্ভিস সেন্টার উদ্বোধন করলো জবাই বিলের নাম শুনলে আড়ৎদারদের মাছ কেনার প্রতি আগ্রহ বাড়ে-খাদ্যমন্ত্রী বোচাগঞ্জে রাইস গ্রেইন ভেলু চেইন একটরর্স মিটিং নোয়াখালীরবেগমগঞ্জে অস্ত্র-গুলিসহ কিশোর গ্যাং সদস্য গ্রেফতার বাতিল হচ্ছে ২১০পত্রিকার ডিক্লারেশন,দেওয়া হবে নতুন ডিক্লারেশন ট্যাক্সিক্যাব চালিয়ে তিন বছরে পবিত্র কোরআন মুখস্থ করেন এক ব্রিটিশ মুসলিম

৩০ বছর ধরে ভাঙ্গাচুরা ঘরে বসবাস ও আফিস করছেন কর্মকর্তা কর্মচারী মধ্যপাড়া বনবিভাগের বাসা বাড়িতে বসবাসের অনুপযোগী \

দিনাজপুর প্রতিনিধি
দিনাজপুরের পূর্বাঞ্চলের মধ্যপাড়া রেঞ্জের বনবিভাগের বাসাবাড়িতে বসবাসের অনুপযোগী। ৩০ বছর ধরে ভাঙ্গাচুরা ঘরে বসবাস ও অফিস করছেন কর্মকর্তা কর্মচারী। দিনাজপুরের পূর্বাঞ্চলের মধ্যপাড়া রেঞ্জের আওতায় বেশ কয়েকটি এলাকায় তদারক করেন মধ্যপাড়া রেঞ্জ কর্মকর্তা খন্দকার মকছুদ আলী। এখানে ২০ জন কর্মকর্তা ও কর্মচারী বসবাস করেন। সরকার বনবিভাগ থেকে কোটি কোটি টাকা রাজস্ব আয় করলেও মধ্যপাড়া বনবিভাগের বাসাবাড়ি ও অফিস সংস্কার করার কোন প্রয়োজন মনেকরছেনা। ফলে তারা ৩০ বছরে পুরাতন কাঁচা পাকা ভবনে বসবাস করছেন এবং অফিস করছেন। এই এলাকার একটি গুরুত্বপূর্ণ এলাকা মধ্যপাড়া রেঞ্জের আবাসিক এলাকায় ৩ একর জমি রয়েছে। সেই সরকারি জমিতে আবাসিক ভবন, রেস্টহাউজ নির্মান করলে দূরদুরান্ত থেকে শতশত মানুষ এখানে এসে রাত্রীযাপন সহ সময় কাটাতে পারেন। এতে সরকার বিপুল পরিমান রাজস্ব আয় করবেন। এই এলাকায় একটি বিশাল পাথর খনি রয়েছে। দূরদুরান্ত থেকে লোকজন এলে এখানে কোন থাকার জায়গা নেই। দিনাজপুর শহর থেকে মধ্যপাড়ার দূরত্ব প্রায় ৭০ কি.মি. মিঠাপুকুর থেকে ফুলবাড়ী মাঝামাঝি স্থানে মনরোম পরিবেশ রয়েছে। মধ্যপাড়া রেঞ্জের কর্মকর্তা কর্মচারীরাও অনেক কষ্টে এখানে বসবাস করছেন ভাঙ্গাবাড়ীতে । সরকারি ভাবে বাসা বাড়ি ও অফিস সংস্কার করা না হলে দিন দিন বসবাসের অনুপযোগী হয়ে পড়বে।
এ ব্যাপারে মধ্যপাড়া রেঞ্জের বন বিভাগের রেঞ্জ কর্মকার্তা খন্দকার মোকসুদ আলীর সাথে কথা বললে তিনি জানান, প্রায় ৩০ বছর ধরে এখানকার বাসা বাড়ীগুলি সংস্কারের অভাবে পড়ে আছে। আমরা বহুবার উদ্ধতন কর্তৃপক্ষকে বিষয়টি জানালেও তাঁরা কোন পদক্ষেপ গ্রাহন করেন নি। তাই আমাদের করনীয় কিছু নেই।

Please Share This Post in Your Social Media

https://twitter.com/WDeshersangbad

https://www.facebook.com/Dsangbad

https://www.facebook.com/Dsangbad

All rights reserved © deshersangbad.com 2011-2021
Design And Developed By Freelancer Zone