বৃহস্পতিবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১১:২০ অপরাহ্ন

শিরোনাম :
রাজধানী থেকে প্রায় এক কোটি টাকার মাদক উদ্ধার নতুনধারা রংপুর-রাজশাহীর সমন্বয়কারী হলেন নিপা অসহায় রাজিয়ার পাশে দাঁড়ালেন সুজন লালপুরের সংঘবদ্ধ হ্যাকার চক্রের ৮ সদস্য গ্রেপ্তার তানোরে বিনামুল্য কৃষি উপকরণ বিতরণ ই-অরেঞ্জ বিনিয়োগ করা টাকা ফেরতের দাবিতে গ্রাহকদের মিছিলে পুলিশের লাঠিচার্জ ক্রেতাদের স্বাচ্ছন্দ্য বৃদ্ধিতে বনশ্রীতে স্যামসাং অথোরাইজড সার্ভিস সেন্টার উদ্বোধন করলো জবাই বিলের নাম শুনলে আড়ৎদারদের মাছ কেনার প্রতি আগ্রহ বাড়ে-খাদ্যমন্ত্রী বোচাগঞ্জে রাইস গ্রেইন ভেলু চেইন একটরর্স মিটিং নোয়াখালীরবেগমগঞ্জে অস্ত্র-গুলিসহ কিশোর গ্যাং সদস্য গ্রেফতার বাতিল হচ্ছে ২১০পত্রিকার ডিক্লারেশন,দেওয়া হবে নতুন ডিক্লারেশন ট্যাক্সিক্যাব চালিয়ে তিন বছরে পবিত্র কোরআন মুখস্থ করেন এক ব্রিটিশ মুসলিম কাভার্ড ভ্যান-ট্রাক মালিক-শ্রমিকদের কর্মবিরতি প্রত্যাহার করোনায় আরও ৩৬ মৃত্যু, শনাক্ত ১,৩৭৬ যার ওপর সূর্য উদিত হয়েছে তার মধ্যে সর্বশ্রেষ্ঠ দিন হল জুমার দিন

দুমকিতে নদীভাঙ্গনে নীঃস্ব ২শত পরিবার।

দুমকি(পটুয়াখালী) প্রতিনিধিঃ

পটুয়াখালীর দুমকি উপজেলার আংগারিয়া ইউনিয়নের আংগারিয়া ও বাহেরচর গ্রামে নদীর ভাঙ্গনে ভুক্তভোগী এলাকাবাসী সর্বস্ব হারাতে বসেছে। ৩১ জুলাই সকাল ৮.৩০মিনিটে সময় হঠাৎ প্রায় ২-৩ একর জমি নিয়ে নদীগর্ভে তলিয়ে যায়। অনেকের কৃষিজমি , গাছপালা ও বসতঘরের ভিটি-মাটি বিলীন হয়ে গেছে। ক্ষতিগ্রস্থরা হলেন মিলন মিরা, মামুন মিরা, ফয়সাল মিরা, দুলাল হাওলাদার, জলিল সিকদার, ফরিদা, ক্ষিতিষ ঘরামী, হিমান্ত ওঝা, পান্টু পাইক, বিমল রায়, বশির হাওলাদার, শাহআলম হাওলাদার, পরিমল পাইক, জাকির হাওলাদার, রুহুল আমিন হাওলাদারসহ আরও অনেকে। হঠাৎ বিলীন হওয়ার সময় জমিতে কৃষি কাজ করতে যাওয়া ১২-১৪ জন লোক নদীতে ঢেউয়ের সাথে পড়ে যায়। এদের মধ্যে গুরুতর আহত হয় বশির এবং আরাফাত। বিপাকে পড়েছে ২৫-৩০টি বসতবাড়ী প্রায় দীর্ঘদিনের চলমান এই নদী ভাঙ্গন ক্রমান্বয়ে বৃদ্ধি পাচ্ছে। এই বিষয়ে এলাকাবাসী একাধিকবার সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে আবেদন জানিয়েছেন । আংগারিয়া ইউনিয়নের আংগারিয়া ও বাহেরচর গ্রামের দীর্ঘ ৬০ বছর যাবত এই নদী ভাংগন শুরু হলেও এখনও শেষ হয়নি। নদী ভাংগন বৃদ্ধি পেয়ে গ্রামের চিত্র পাল্টে গেছে বলে জানান স্থানীয় বাসিন্দা ও সাবেক ইউপি সদস্য আব্দুর রাজ্জাক হাওলাদার ও বর্তমান ইউপি সদস্য মো: শাহীন গাজী। কয়েকমাস পূর্বে ভাঙ্গন রোধের জন্য এলাকাবাসী মানববন্ধন করে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে সংশ্লিষ্ট কর্তপক্ষের মাধ্যমে আবেদন করলেও অদ্যবধি পর্যন্ত কোন ফল পাওয়া যায়নি। এলাকার বাসিন্দা তরিকুল ইসলাম বলেন, আমাদের এমনই অবস্থা হয়েছে যে, মাথাগুজার ঠাঁই নেই বললেই চলে। ঘর বাড়ি ভেঙ্গে যাওয়ায় প্রতিবছর নতুন ঘর তৈরি করতে হয়। অনেকের ভিটে-মাটি না থাকায় অন্যের বাড়ির আঙ্গিনায় ও রাস্তার পাশে ঘরতুলে দিনযাপন করছেন।

 এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শেখ আব্দুল্লাহ সাদীদ জানান, বিষয়টি উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের কাছে ইতিমধ্যে জানানো হয়েছে। এবং ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারে তালিকা করে সহযোগীতা করা হবে।

Please Share This Post in Your Social Media

https://twitter.com/WDeshersangbad

https://www.facebook.com/Dsangbad

https://www.facebook.com/Dsangbad

All rights reserved © deshersangbad.com 2011-2021
Design And Developed By Freelancer Zone