শনিবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৯:৫৪ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম :
দেশে ফিরেছেন জেএসডি সভাপতি আ স ম রব বিরামপুরে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত-১ তানোরে ভেজাল কীটনাশকে কৃষকের কপাল পুড়লো  রিশিকুলকে মডেল ইউপিতে রুপান্তর করতে চাই, চেয়ারম্যান টুলু ইভ্যালির গ্রাহকদের অর্থ ফিরিয়ে দেয়ার দায়িত্ব রাষ্ট্রকেই নিতে হবে: টিক্যাব ডেঙ্গু দুর্যোগ প্রতিরোধে সরকার পুরোপুরি ব্যর্থ : রোগী কল্যাণ সোসাইটি দেশের বিভিন্ন পর্যটন কেন্দ্রগুলোতে সাইকেল পার্কিং এর সুব্যবস্থা রাখতে হবে সরকারি দখলকৃত জায়গা উচ্ছেদ করে স্থায়ীভাবে বৃক্ষরোপণের দাবি জানালো সবুজ আন্দোলন ৯০ কৃষককে কৃষি উপকরণ দিলো রাবির শিক্ষার্থীরা গণমানুষের মুক্তি সংগ্রামে সাহসী নেতা জেবেল : রীবন বড়াইগ্রাম কেন্দ্রীয় প্রেসক্লাবের পক্ষ থেকে পদোন্নতিপ্রাপ্ত ইউএনও’কে বিদায় সংবর্ধনা দক্ষিণাঞ্চলে কমেছে করোনা বেড়েছে ডেঙ্গু রোগীর সংখ্যা সাংবাদিক মাসুদের বিরুদ্ধে সেই দুর্ণীতিবাজ প্রধান শিক্ষকের জিডি প্রাইমএশিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের সঙ্গে চীনের হারবিন সায়েন্স অ্যান্ড টেকনোলজি ইউনিভার্সিটির চুক্তি নোয়াখালীতে বরযাত্রীবাহী বাস দুর্ঘটনায় মৃত্যু-১, আহত-১২

তানোরের মুন্ডুমালা কলেজে ঝুঁকিপূর্ণ ভবনে পাঠদান

আলিফ হোসেন,তানোর
রাজশাহীর তানোরের প্রাচীনতম বিদ্যাপিঠ ফজর আলী মোল্লা ডিগ্রী কলেজের একাডেমিক ভবন অনেকটা ঝুঁকিপূর্ণ ও ভবন সঙ্কটের কারণে পাঠদান অনেকটা ব্যাহত হচ্ছে। কলেজের তিনতলা বিশিষ্ট একাডেমিক ভবন নির্মাণের পর দীর্ঘদিন ধরে কোনো সংস্কার না করায় সেটি অনেকটা ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে উঠেছে। ফলে শিক্ষার্থীদের অনেকটা জীবনের ঝুঁকি নিয়ে লেখাপড়া করতে হচ্ছে। স্থানীয় এলাকার শিক্ষানুরাগী সচেতন মহল, অভিভাবক ও শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা দ্রুত একাডেমিক ভবন সংস্কার ও নতুন একাডেমিক ভবন নির্মাণের জন্য সংশ্লিষ্ট বিভাগের উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন।
জানা গেছে, বিগত ১৯৭১ সালে তানোরের মুন্ডুমালাহাট এলাকায় এলাকাবাসীর উদ্যোগে মুন্ডুমালা ফজর আলী মোল্লা ডিগ্রী স্থাপন করা হয় এবং ১৯৮৪ সালে এমপিওভুক্তকরণ ও ১৯৯৪ সালে তিনতলা বিশিস্ট একটি একাডেমিক ভবন নির্মাণ করা হয়। কলেজে শিক্ষক-কর্মচারী রয়েছে মোট ৪৮ জন এবং শিক্ষার্থী রয়েছে প্রায় ৬৫০ জন। চলতি শিক্ষাবর্ষে কলেজ থেকে এইচএসসি পরীক্ষায় ৪৫০ জন শিক্ষার্থী অংশগ্রহণ করেন এবং পাশের হার শতকরা ৮২ শতাংশ এ প্লাস পেয়েছেন একজন। কিšত্ত ভবন নির্মাণের পর দীর্ঘদিন অতিবাহিত হলেও সংস্কার না করায় ভবনটি ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়েছে। এছাড়াও শিক্ষার্থীর সংখ্যা বেশি হওয়ায় একাডেমিক ভবনের সঙ্কট দেখা দিয়েছে। অপ্রিয় হলেও সত্যি কলেজটি গ্রামীণ জনপদে শিক্ষা বিস্তারে ব্যাপক অবদান রাখলেও সরকারীভাবে তেমন কোনো সাহায্য-সহযোগীতা পায়নি। স্থানীয়দের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, মুন্ডুমালা কলেজ উপজেলার প্রত্যন্ত পল্লী ও অবহেলিত গ্রামীণ জনপদের অধিবাসিদের ভবিষ্যৎ প্রজন্মের (ছেলে-মেয়ে) মধ্যে শিক্ষা বিস্তারে ব্যাপক অবদান রেখে চলেছে। এব্যাপারে মুন্ডুমালা ফজর আলী মোল্লা কলেজের অধ্যক্ষ জয়নাল আবেদিন বলেন, এমপি আলহাজ্ব ওমর ফারুক চৌধূরী মহোদয় এবং পরিচালনা কমিটির সভাপতি অধ্যাপক লুৎফর রহমান সাহেবের আন্তরিক সহযোগীতায় শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের পরিবেশ উন্নয়ন করা সম্ভব হয়েছে। তিনি বলেন,তাদের শিক্ষার্থীর সংখ্যা প্রতিনিয়ত বাড়ছে এতে একাডেমিক ভবন সঙ্কট দেখা দিয়েছে, তাদের একটি একাডেমিক ভবন নির্মাণ অতিবও জরুরী। তিনি এ বিষয়ে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, শিক্ষামন্ত্রী ও স্থানীয় সাংসদের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন। #

Please Share This Post in Your Social Media

https://twitter.com/WDeshersangbad

https://www.facebook.com/Dsangbad

https://www.facebook.com/Dsangbad

All rights reserved © deshersangbad.com 2011-2021
Design And Developed By Freelancer Zone