বৃহস্পতিবার, ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৫:২৩ অপরাহ্ন

শিরোনাম :
ছাদে অসাধারন আঙ্গুর গাছের বাগান === যে কারনে গরুর খামার করে সফল হতে পারছেন না নতুন খামারিরা ** চন্দন গাছের টুকিটাকি- বীজ থেকে চারা উত্তোলন আর যত্নাদি ** “মাঠ পর্যায় ইউ‌পি নির্বাচনী ধারাবা‌হিক অনুসন্ধানী প্রতি‌বেদন” (পর্ব-০১) জার্মান আওয়ামী লীগ তিব্র নিন্দা এবং প্রতিবাদ চাকরির আট বছরেই ১৩ কোটি টাকার মালিক বিআরটিএ কর্মকর্তা ২২ বছর বয়সের মধ্যে বিয়ে না হলে মে’য়েদের ৭ টি সমস্যার মুখোমুখি হতে হয় মেয়েদের পাঁচটি অঙ্গ বড় হলে স্বামীরা সৌভাগ্যবান হয়ে থাকে কি করলে মেয়েরা কখনো ছেলেদের ভুলতে পারবে না! গোসলের সময় বা ও’য়াশরুমে গিয়ে মেয়েরা কী চিন্তা করে? প্রেমের ফাঁদে ফেলে অপরাধীকে ধরলেন পুলিশের এসআই! ভাই-ভাবি ও তাদের দুই সন্তানকে খু’নের রায়ে ছোট ভাইকে মৃ’ত্যু’দণ্ড আওয়ামী লীগের সম্ভবনাময় গোছানো মাঠ নস্টের অভিযোগ তানোরের বাঁধাইড় ইউপিতে আলোচনা সভা শিক্ষার্থীদের ডিজিটাল সিটিজেন হিসেবে গড়ে তুলতে শিক্ষকদেরই অগ্রণী ভূমিকা রাখতে হবে 

এমপি ফারুকের বিরুদ্ধে অভিযোগের হেতু কি ?

আলিফ হোসেন, তানোর
রাজশাহী-১ (তানোর-গোদাগাড়ী) ভিআইপি এই সংসদীয় আসনে আওয়ামী লীগ দলীয় সাংসদ, রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি, সাবেক শিল্প প্রতিমন্ত্রী, বিলাস ও প্রচার বিমূখ, সৎ রাজনৈতিকের প্রতিকৃতি, কর্মী-জনবান্ধব, আদর্শিক ও মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর বিশস্ত নেতৃত্ব আলহাজ্ব ওমর ফারুক চৌধূরীর বিরুদ্ধে কেনো বার বার মিথ্যা-ভিত্তিহীন-বানোয়াট অভিযোগের পাহাড় দাঁড় করানো হচ্ছে এসব অভিযোগের হেতু কি ? আবার তার বিরুদ্ধে চেনা মূখের নিদ্রিস্ট একটি গোষ্ঠিই বার বার এসব অভিযোগ উঙ্খাপন করছে। এমপি ফারুক চৌধূরী প্রায় কুড়ি বছর আওয়ামী লীগকে নেতৃত্ব দিয়ে আসছেন কুড়ি বছর পর হঠাৎ করেই তিনি কি কারণে এতোটা খারাপ হয়ে গেলেন যে কোনো সুনিদ্রিস্ট তথ্য-উপাত্ত ব্যতিত তার বিরুদ্ধে পাহাড়সম অভিযোগ উঙ্খাপন করা হচ্ছে। তাহলে এই কুড়ি বছর আওয়ামী লীগের এসব কথিত শুভাকাঙ্খিরা কোথায় ছিলেন এই প্রশ্নের উত্তর কি তারা দিতে পারবেন ? প্রশ্ন হলো আওয়ামী লীগকে যদি তিনি নেতুত্ব দিতে ব্যর্থ হন তাহলে তো তৃণমূল থেকে তার বিরুদ্ধে অভিযোগ আশার কথা সেটা না হয়ে বার বার একই গোষ্ঠির অভিযোগ তাহলে কি আওয়ামী লীগ শুধু এরাই করে এরাই আওয়ামী লীগের ভাল চাই আর কেউ নেই। আবার রাজশাহী বিভাগীয় একটি জেলা শহর এবং জামায়াত-বিএনপির আতুড়ঘর হিসেবে পরিচিত এখানে আওয়ামী লীগকে নেতৃত্ব দিতে হলে নেতার রাজনৈতিক দূরদর্শীতা-আর্থিক স্বচ্ছলতা, সাহসীকতা-কর্মীবাহিনী, পারিবারিক ঐতিহ্য-সামাজিক পরিচিতি ইত্যাদি গুনের অধিকারী হতে হবে তা কেবলমাত্র ফারুক চৌধূরী ব্যতিত তার বিরুদ্ধে অভিযোগকারী গোষ্ঠির কারো মধ্যে কি রয়েছে বা ফারুক চৌধূরীকে সরিয়ে তার শূণ্য স্থান পুরুণের মতো সক্ষমতা কি কারো রয়েছে নিশ্চিত সেটা নাই তাহলে কেনো তারা বার বার তার বিরুদ্ধে এসব গায়েবী অভিযোগ উঙ্খাপন করছে তাদের উদ্দেশ্যে কি ?
স্থানীয়রা জানায়, স¤প্রতি একটি গোষ্ঠি ফের এমপি ফারুকের বিরুদ্ধে অভিযোগ উঙ্খাপন করে তাকে যেনো জেলা সভাপতি করা না হয় সেই দাবি করেছে তবে তার সুনিদ্রিস্ট কোনো ব্যাঙ্খা নাই। তাহলে এটা সেই রকম নই কি ? বিচার মানি তাল গাছটা আমার। কারণ এমপি ফারুক চৌধূরী আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে আশার পর দল সাংগঠনিকভাবে কি শক্তিশালী হয়েছে না দুর্বল হয়েছে, স্থানীয় নির্বাচনে তিনি কখানো কি নেতা, নেতৃত্ব ও দলের সঙ্গে বেঈমানী করে বিদ্রোহী প্রার্থীর পক্ষে কাজ করেছেন, তিনি কখানো কি দলের কোনো দায়িত্বশীল নেতার বিরুদ্ধে মিথ্যাচার করেছেন, তিনি কখানো কি দলীয় কর্মসূচির নামে চাঁদাবাজী, টেন্ডারবাজী, ভূমিদুস্যুতা-জবরদখল, সন্ত্রাসী-লুটপাট, নিয়োগ-তদ্বির বাণিজ্য বা স্থানীয় নির্বাচনে মনোনয়ন বাণিজ্য ইত্যাদি করেছেন করেন নাই,তাহলে কেনো তাকে সভাপতির দায়িত্ব না দেবার দাবী, আর এই দাবী যারা করছে তারা কারা উদ্দেশ্যে কি ? ইত্যাদি হাজারো প্রশ্নের জন্ম দিয়েছে নেতা ও কর্মী-সমর্থকদের মনে। আবার রাজশাহী জামায়াত-বিএনপির আঁতুড়ঘর তছনছ করে আওয়ামী লীগের বসতঘর ফারুক চৌধূরীর নেতৃত্বে হয়েছে আওয়ামী লীগে তার ব্যাপক অবদান রয়েছে। তবে যারা তার বিরুদ্ধে নানা ধরণের গায়েবী অভিযোগ উঙ্খাপন করছে আওয়ামী লীগে তাদের কি কোনো অবদান রয়েছে কেউ কি বলতে পারবে ? তৃষমূলের অভিমত, জামায়াত-বিএনপির আর্থিক পৃষ্ঠপোষকতায় আওয়ামী লীগের কিছু বিপদগামী নেতার সমন্বয়ে গড়ে উঠা একটি গোষ্ঠি বা সিন্ডিকেট চক্র এমপি ফারুকের বিরুদ্ধে এসব গায়েবী অভিযোগ উঙ্খাপন করছে, তাদের উদ্দেশ্যে আওয়ামী লীগ সরকারে থাক তবে হেভিওয়েট কোনো নেতা দলের সভাপতি বা দলের এমপি যেনো না থাকে তাহলে দলের নাম ভাঙ্গিয়ে অবৈধ অর্থ আহরণ করতে তাদের সুবিধা হবে। এদিকে জননন্দিত ও গণমানুষের নেতা এমপি ফারুকের বিরুদ্ধে একের পর এক এসব গায়েবী অভিযোগের খবর প্রচার পর এই জনপদের মানুষ বিক্ষুব্ধ হয়ে উঠেছে।
জানা গেছে, এমপি ফরুকের নেতৃত্বেই রাজশাহী জামায়াত-বিএনপির আঁতুড়ঘর ভেঙ্গে আওয়ামী লীগের বসতঘরে পরিণত করা হয়েছে। দেশ স্বাধীনের পর তার রাজনৈতিক দূরদশীতায় এবারই প্রথম তানোরের ৭টি ইউনিয়ন ও ১টি পৌরসভায় আওয়ামী লীগ এবং বির্তকিত নির্বাচনে ১টি পৌরসভায় বিএনপি বিজয়ী হয়েছে, গোদাগাড়ী উপজেলাতেও প্রায় একই অবস্থা। তাছাড়া এমপি ফারুক চৌধূরী আওয়ামী লীগে আশার আগের ও পরের অবস্থান পর্যালোচনা করলেই বেরিয়ে আসবে তিনি আদর্শিক আওয়ামী লীগ না জামায়াত-বিএনপির প্রশ্রয়দাতা এটার জন্য রাজনীতি বিশেষজ্ঞ হবার প্রয়োজন নাই।
এদিকে রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের অভিমত, এমপি আলহাজ্ব ফারুক চৌধূরীর বিরুদ্ধে তথ্য-উপাত্ত ছাড়াই যত অভিযোগ উঙ্খাপন হয়েছে সবগুলোই ওই একটি গোষ্ঠি বা সিন্ডিকেট চক্রের। আর এর মধ্যে দিয়ে এটাই প্রমাণ হয়েছে আসলে এমপি ফারুকের পরিচ্ছন্ন ব্যক্তি ইমেজক্ষুন্ন ও সমাজে তাকে হেয়ওপ্রতিপন্ন করতেই তার বিরুদ্ধে এসব গায়েবী অভিযোগ। ফলে এই জনপদের মানুষ বঙ্গবন্ধু কন্যা, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ও জননেত্রী শেখ হাসিনার দৃষ্টি আকর্ষণ করে বলেন, যারা তার মনোনিত নেতৃত্বের বিরুদ্ধে এসব মিথ্যা-বানোয়াট অপপ্রচার ও প্রগান্ডা ছড়িয়ে দল, নেতা ও নেতৃত্বের অবমাননা করেছেন তাদের বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা গ্রহণের দাবী করেছেন। এছাড়াও যারা এমপি ফারুকের বিরুদ্ধে এসব অভিযোগ উঙ্খাপন করেছেন তাদের মধ্যে নব্য কোটিপতি অনেকের বিরুদ্ধে খাস জমি দখল করে বহুতল ভবন নির্মাণ, টেন্ডারবাজী, দলীয় কর্মসূচির নামে চাঁদাবাজী, হাট-ঘাট-মাদক স্পট ও বালুমহাল ইত্যাদি থেকে চাঁদাবাজির কথা সাধারণ মানুষের মধ্যে প্রচার বা আলোচনা রয়েছে। রাজশাহী-১ আসনের নির্বাচনী এলাকার বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার মানুষের সঙ্গে কথা বলে এসব তথ্য পাওয়া গেছে। #
তানোর প্রতিনিধি

Please Share This Post in Your Social Media

https://twitter.com/WDeshersangbad

https://www.facebook.com/Dsangbad

https://www.facebook.com/Dsangbad

All rights reserved © deshersangbad.com 2011-2021
Design And Developed By Freelancer Zone